headsir

মহান রাব্বুল আলামিন তার প্রিয় হাবিব হযরত মুহাম্মদ (সঃ)-এর নিকট সর্বপ্রথম যে বাণী পাঠিয়েছিলেন- পবিত্র কুরআনের সেই শব্দটি হচ্ছে ‘ইকরা’ অর্থাৎ ‘পড়’। তাই বিদ্যাশিক্ষা প্রত্যেকের জন্য অবশ্য কর্তব্য। প্রত্যেক ধর্মেই বিদ্যাশিক্ষার গুরুত্ব প্রদান করা হয়েছে। পশু পাখি সহজেই পশুপাখি, তরুলতা সহজেই তরুলতা কিন্তু মানুষকে ‘মানুষ’ হতে হয় আপ্রাণ চেষ্টায়। আর মানুষকে মানুষ করে শিক্ষা আর শিক্ষার জন্য প্রয়োজন শিক্ষালয় তথা বিদ্যালয়। একথা অনস্বীকার্য যে শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবক এ ত্রিধারার সমন্বিত ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে বিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ গড়ে তোলা সম্ভব। আমরা যদি প্রত্যেকেই স্ব স্ব অবস্থান থেকে নিজ নিজ দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালন করি তবেই একটি আদর্শ বিদ্যালয় গড়ে তোলা সম্ভব। আমরা শিক্ষকমণ্ডলী যদি হালাল রুজির চিন্তা করি, মাতা-পিতা যদি তাদের সন্তানকে আদর্শ মা্নুষ ও দেশের জন্য সুনাগরিক তৈরী করার কথা ভাবেন আর আমাদের কোমলমতি সোনামনিরা যদি শিক্ষক, মাতা-পিতা, সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রতি দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করার দৃঢ় প্রত্যয়ী হয় তবেই কাঙ্খিত ফলসহ প্রতিটি শিক্ষার্থী একদিন দেশের জন্য প্রয়োজনীয় মানুষটি হয়ে উঠবে।
সম্মানিত অভিভাবকগণ আন্তরিক সহযোগিতা ও মুল্যবান পরামর্শ দিয়ে আমাদের কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে সাহায্য করবেন- এটাই আমাদের প্রত্যাশা। -আমিন